রেকর্ড গড়লো নবম জাতীয় সংসদ

Filed under: জাতীয়,ফিচার |

sangshad-bhaba1]

 

সংসদ অধিবেশনে কার্যদিবসের রেকর্ড গড়ল নবম জাতীয় সংসদ। সে দৃষ্টিকোন থেকে এটিকে একটি মাইলফলকও বলা যেতে পারে। ৭ সেপ্টেম্বর বিকেলে দেশের প্রথম নারী স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বর্তমান সংসদের ৪০১তম কার্যদিবস শুরু হয়, যা বাংলাদেশের সংসদীয় ইতিহাসে সর্বোচ্চ। অভিজ্ঞমহলের অভিমত হচ্ছে, ‘যা হোক, যেভাবেই হোক, সংসদের এ ক্ষেত্রে কিছুটা সাফল্য তো তো এলো।’ তারা সামনের সংসদগুলোতেও এর ধারবাহিকতা দেখতে চায়। উত্তোরোত্তর কার্যদিবসের বৃদ্ধি চায়।

এর আগে সর্বোচ্চ ৪০০ কার্যদিবস স্থায়ী ছিল পঞ্চম জাতীয় সংসদ।

জানা যায়, সংসদ সচিবালয়ের তথ্য অনুযায়ী, প্রথম সংসদ স্থায়ী হয়েছিল ১৩৪ কার্যদিবস, মেয়াদকাল ছিল ১৯৭৩ সালের ৭ এপ্রিল থেকে ১৯৭৫ সালের ৬ নভেম্বর। ১৯৭৯ সালের ২ এপ্রিল থেকে ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ

মেয়াদের দ্বিতীয় সংসদ স্থায়ী হয় ২০৬ কার্যদিবস।

১৯৮৬ সালের ১০ জুলাই থেকে ১৯৮৭ সালের ৬ ডিসেম্বর মেয়াদের তৃতীয় সংসদ স্থায়ী হয় ৭৫ কার্যদিবস।  চতুর্থ সংসদ স্থায়ী হয়েছিল ১৬৮ কার্যদিবস, যার মেয়াদকাল ছিলো ১৯৮৮ সালের ১৫ এপ্রিল থেকে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর।

১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল থেকে ১৯৯৫ সালের ২৪ নভেম্বর পর‌্যন্ত মেয়াদ ছিল পঞ্চম জাতীয় সংসদের। আর এর কার্যদিবস ছিল ৪০০।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত  সবচেয়ে কম মেয়াদের সংসদ ছিল ষষ্ঠ সংসদ। এই সংসদ মাত্র ৪ কার্যদিবসের ছিল। মেয়াদকাল ছিলো ১৯৯৬ সালের ১৯ মার্চ থেকে ৩০ মার্চ।

সপ্তম সংসদ স্থায়ী হয় ৩৮২ কার্যদিবস। মেয়াদকাল ছিল ১৯৯৬ সালের ১৪ জুলাই থেকে ২০০১ সালের ১৩ জুলাই।

২৮ অক্টোবর ২০০১ থেকে ২৭ অক্টোবর ২০০১ মেয়াদের অষ্টম সংসদ স্থায়ী হয়েছিল ৩৭৩ কার্যদিবস।

আর চলতি নবম জাতীয় সংসদ গত ১৯ সেপ্টেম্বর ৪০০ কার্যদিবসে পৌঁছেছে। ২০০৯ সালের ২৫ জানুয়ারি যাত্রা শুরু করে এ সংসদ। এর মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৫ জানুয়ারি।

এই সংসদেই গত ৩০ এপ্রিল দেশের প্রথম নারী স্পিকার নির্বাচিত হন শিরীন শারমিন চৌধুরী।

রেকর্ড সংখ্যক কার্যদিবস প্রসঙ্গে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর ভাষ্য হচ্ছে, “এর ফলে বোঝা যায় চলতি সংসদ কার্যকরী ও প্রাণবন্ত ছিল।”

আইন প্রণয়নের দিক দিয়েও নবম জাতীয় সংসদ অন্য সংসদের চেয়ে এগিয়ে আছে। এখন পর্যন্ত ২৪০টি আইন পাস হয়েছে এ সংসদে।

প্রথম সংসদে আইন প্রণীত হয় ১৫৪টি, দ্বিতীয় সংসদে ৬৫টি এবং তৃতীয় সংসদে ৩৯টি।

চতুর্থ সংসদে ১৪২টি, পঞ্চম সংসদে ১৭৩টি। ষষ্ঠ সংসদে মাত্র একটি আইন প্রণয়ন করা হয়। সপ্তম সংসদে ১৯১টি এবং অষ্টম সংসদে ১৮৫টি আইন প্রণয়ন করা হয়।

গত ১২ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া চলতি ১৯তম অধিবেশন আগামী ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে।

সংবিধান অনুযায়ী সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ৯০ দিনের মধ্যে আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে হিসেবে চলমান এই ১৯তম অধিবেশনই নবম জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশন হতে পারে।

১৯তম অধিবেশনের শুরুর দিন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, “২৫ অক্টোবর থেকে ২৪ জানুয়ারি সময়ের মধ্যে যেকোন দিন সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

-সময়ের কথা ডেস্ক

 

সময়ের কথায় প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।