|

এবার মেসি’র চেঁচামেচি!

Lionel Messi

নূরুল আলম ॥ ‘রোনাল্ডোর চাইতে আমি কম কিসে? আমিও চাই রোনাল্ডোর সমপরিমান অর্থ।’ এমন মনোভাবের প্রেক্ষিতেই নাকি এবার বেঁকে বসেছেন চারবারের বর্ষসেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি।

সংবাদে জানা যায়, বার্সেলোনার কাছে এই ফুটবলের যুবরাজ রিয়াল মাদ্রিদ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর সমপরিমাণ অর্থ পারিশ্রমিক দাবি করেছেন।

উল্লেখ করা যেতে পারে, মাত্র কয়েক দিন আগেই বার্ষিক প্রায় ১৭ মিলিয়ন ইউরো পারিশ্রমিকে রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ২০১৮ সাল পর্যন্ত চুক্তি নবায়ন করেছেন রোনাল্ডো। আর রোনাল্ডোর এই বিশাল পরিমানে অর্থচুক্তি মেসির ইগোকে দারুণভাবে আঘাত করেছে বলেই ফুটবলবোদ্দারা মনে করছেন। মাঠে তো নয়ই; এমনকি অর্থের মাপকাঠিতেও অন্য কোনো ফুটবলারের চাইতে নিজেকে ছোট ভাবতে যেনো নারাজ এই সুপারস্টার।

রোনাল্ডোর চুক্তির অর্থের পরিমাণ জানাজানি হওয়ার পর নিজের অর্থের পরিমাণ নিয়ে মেসি অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলে জানা গেছে। বিশেষ করে চারবার ব্যালন ডি’এর জেতার পর স্বাভাবিকভাবেই কিছুটা অসন্তুষ্ট মেসি।

স্প্যানিশ সংবাদপত্র ‘স্পোর্ট’ প্রকাশিত খবরে বলা হয়, বর্তমানে ১২.৫ মিলিয়ন ইউরো পারিশ্রমিক পাওয়া মেসি আরও বেশি অর্থ দাবি করছেন।

তবে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অবশ্য অস্বীকার করেছেন বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট সান্দ্রো রোসেল। রোসেল বলেন, ‘রোনাল্ডোর চুক্তি নবায়নে কি মেসির চুক্তিতে প্রভাব পড়বে? মেসি আমাদের কিছু বলেনি।’ তিনি বলেন, মেসি এখানে সুখি এবং বিশ্বের সেরা ক্লাবটিতেই সে আছে। কোন সংবাদ না থাকাই ভাল সংবাদ।’

এদিকে, মেসির বিরুদ্ধে ইতোমধ্যেই কর না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এবং ২৭ সেপ্টেম্বর তার আদালতে যাওয়ার কথা রয়েছে। ২০০৬-২০০৯ সাল পর্যন্ত আর্জেন্টাইন মেসি ও তার বাবা ৪.৩ মিলিয়ন পাউন্ডেরও বেশি কর ফাঁকি দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এবার আসা যাক মাঠের লড়াইয়ে। আগের রাতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো হ্যাটট্রিক হাঁকানোর পর লিওনেল মেসিও এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মৌসুম শুরু করলেন একই নৈপুণ্য দিয়ে। মেসির এই চমৎকার হ্যাট্রিক নৈপুণ্যের সুবাদে শিরোপা প্রত্যাশী বার্সেলোনা গত ১৮ সেপ্টেম্বর ৪-০ গোলে হারিয়েচে আয়াক্সকে।

উল্লেখ্র, বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন কোচ জেরার্ডো মার্টিনো ও ব্রাজিল তারকা নেইমার ডাচ দলটির বিরুদ্ধে জয় দিয়ে ইউরোপের ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ এ আসরটিতে অভিষেক নেন। মার্টিনো অবশ্য তার স্বদেশী মেসি ও গোলরক্ষক ভিক্টর ভালদেসের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন। তিনি বলেন,’বার্সেলোনা হচ্ছে মেধাবিদের সমাহার। আজ আমরা মেসি ও ভালদেসকে নিয়ে কথা বলতে পারি। অন্যদিন বলবো জাবি ও নেইমারকে নিয়ে। এটা খুবই স্বাভাবিক যে তাদের যে কোন একজন পরিস্থিতি বুঝে হাল ধরবে।’

বার্সেলোনার মাঠ ন্যু ক্যাম্পে নিজের ৮০তম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ম্যাচে ৬০, ৬১ ও ৬২তম গোলটি করেন মেসি। চারবার ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলার হওয়া আর্জেন্টাইন অধিনায়ক ২২তম মিনিটে গোলের সূচনা করেন। আয়াক্সের সীমানায় মেসিকে ফাউল করা হলে তা থেকে পাওয়া ফ্রি-কিকটি চমত্কারভাবে জালে জড়িয়ে দেন তিনি। ৫৫ মিনিটে স্বাগতিকদের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মেসি।

নেইমার নিজের অভিষেকে গোল না পেলেও ৬৯ মিনিটে জেরার্ড পিকের নেয়া দলের তৃতীয় গোলটি রচে দেন। ৭৫ মিনিটে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন আর্জেন্টাইন ফুটবলারটি। এ জয়ে বার্সেলোনা ও মিলান ‘এইচ’ গ্রুপের শীর্ষে থাকলো।

মেসি এই গোলগুলোর সুবাদে রাউল গঞ্জালেসের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বাধিক লক্ষ্যভেদের (৭১) রেকর্ডটি থেকে আর কেবল নয় গোল দূরে থাকলেন।

সময়ের কথায় প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন





টুইটারে আমরা

পূর্বের সংখ্যা